অবশেষে ক্যান্সারের টিকা আবিষ্কার ! সংবাদটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

অবশেষে আবিষ্কৃত হয়েছে ক্যান্সারের টিকা। এই টিকা শরীরের যেকোনো অংশে ছড়িয়ে থাকা ক্যান্সারের জীবাণু ধ্বংস করবে বলে দাবি গবেষকদের।

ইতিহাস সৃষ্টিকারী এই টিকা এখনও পরীক্ষামূলক অবস্থাতেই রয়েছে। প্রথমবারের মতো এক রোগীর শরীরে এই টিকা প্রয়োগ করার পর ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া গেছে বলে দাবি করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, লন্ডনের বেকেনহ্যাম এলাকার বাসিন্দা কেলি পটার (৩৫) নামে এক নারীর শরীরে প্রথমবারের মতো ওই টিকা প্রয়োগ করা হয়েছিল। জরায়ুর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। তার শরীরে যখন ক্যান্সারের টিকা প্রয়োগ করা হয়েছিলো সে সময় তার ক্যান্সার চতুর্থ পর্যায়ে ছিলো।

তার লিভার ও ফুসফুসের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছিল ক্যান্সারের জীবাণু। টিকা দেওয়ার পর তার শরীরে ক্যান্সারের ব্যাপ্তি এখন অনেকটা স্থিতিশীল রয়েছে বলে দাবি করেছেন বিশেষজ্ঞরা। একইসঙ্গে লিভার ও ফুসফুসের মধ্যে জীবাণু ছড়িয়ে পড়াও বন্ধ হয়েছে তার। আগের চেয়ে এখন অনেক ভালো রয়েছেন বলে জানিয়েছেন কেলি।

বিশেষজ্ঞ জেমস স্পাইসার পরামর্শ দিয়েছেন, ক্যান্সার শরীর হতে পুরোপুরি নির্মূল করতে এই টিকার সঙ্গে কম মাত্রার কেমোথেরাপি দেওয়ার জন্য। এই টিকা শরীরে প্রবেশ করলে তা ভালো কোষগুলোকে অক্ষুণ্ণ রেখে ক্যান্সারের ক্ষতিকর কোষগুলোকে খুঁজে বের করে তা ধ্বংস করতে সক্ষম বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

সবাই এখন যা পড়ছে :-

——–

কিডনি সুস্থ রাখতে চান? তাহলে খান এই ৭টি খাবার

মানবদেহের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল কিডনি। বলতে গেলে কিডনি নষ্ট হলে বাঁচার কোন উপায় নেই। কিডনি আমাদের দেহের বর্জ্য পদার্থ এবং দেহের বাড়তি পানি নিষ্কাশনে সাহায্য করে আমাদের দেহকে রাখে ক্ষতিকর টক্সিন মুক্ত। তাই কিডনির সুস্থতা আমাদের নিজেদের সুস্থ থাকার জন্য অত্যন্ত জরুরী।

আপেল

আপেল পেকটিনের অন্যতম উৎস। এর দ্রবণীয় আঁশ কোলেস্টেরল এবং গ্লুকোজের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। আপেলের খোসায় অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা মস্তিষ্কের কোষ প্রতিরোধ করে। এছাড়া এটি ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। আপেল কাঁচা অথবা প্রতিদিন এক গ্লাস আপেলের জুস খাওয়ার চেষ্টা করুন।

ফুলকপি এবং বাঁধাকপি

ফুলকপিতে প্রচুর ভিটামিন সি, ফাইবার রয়েছে। যা লিভার এবং শরীরের অন্যান্য অঙ্গ সুস্থ রাখে। শুধু ফুলকপি নয় বাঁধাকপিও কিউনির জন্য বেশ উপকারী। এর ভিটামিন বি৬, সি, কে, ফাইবার এবং ফলিক অ্যাসিড কিউনি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

স্ট্রবেরি

স্ট্রবেরিতে দুই ধরণের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি এবং ফাইবার রয়েছে যা অ্যান্টি ইনফ্লামেনটরি এবং অ্যান্টি ক্যান্সার হিসেবে কাজ করে। এটি হার্ট সুস্থ রাখার পাশাপাশি কিউনি সুস্থ রাখে।

রসুন

রসুন অ্যান্টি ইনফ্লেমেটোরি এবং কোলেস্টেরল কমাতে অনেক বেশি কার্যকরী। এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান আছে যা দেহের প্রদাহ দূর করে থাকে। তবে রান্না করে খেলে এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায় না। ভাল হয় সকালে খালি পেটে কাঁচা রসুন খাওয়া, এটি হার্ট ভাল রাখার পাশাপাশি কিডনিকেও ভাল রাখে।

মাছ

কিডনিকে সুস্থ রাখার অন্যতম খাবার হল মাছ। এতে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন, ওমেগা থ্রি এবং অ্যান্টিইনফ্লেমেটোরি ফ্যাট আছে যা কিডনিকে সুস্থ রাখে। আমেরিকান ডায়াবেটিকস এসোসিয়েশনের মতে দিনের খাদ্য তালিকায় দুই থেকে তিন বেলা মাছ রাখুন। এটি আপনার হৃদযন্ত্র ঠিক রাখার পাশপাশি ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে থাকে।

ডিমের সাদা অংশ

ডিমের সাদা অংশে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন আছে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফসফরাস এবং অ্যামিনো এসিড আছে যা কিডনি রোগ প্রতিরোধ করে কিডনিকে সুস্থ রাখে। ডিম সিদ্ধ করে বা অমলেট করে খেতে পারেন। তবে হ্যাঁ ডিমের সাদা অংশ শুধু।

পেঁয়াজ

পেঁয়াজের প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আছে যা কিডনি পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। এছাড়া এতে প্রচুর পরিমাণে ফ্ল্যাভোনোয়েড রয়েছে। যা রক্তের চর্বি দূর করে থাকে। এর কোয়ারসেটিন উপাদনা যা হৃদরোগ প্রতিরোধ করে থাকে। পেঁয়াজে পটাশিয়াম, প্রোটিন আছে যা কিডনির জন্য অনেক বেশি উপকারী।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>