পরিবারের মেজ সন্তান সবচেয়ে বুদ্ধিমান!

যে কোনো পরিবারের মেজ সন্তানকে যদি জিজ্ঞেস করা হয়, বাবা-মা কাকে বেশি স্নেহ করেন, তার উত্তর হবে বড় নয়তো ছোট জনকে। আর এর কারণ হলো পরিবারের মেজ সন্তানরা নিজেদেরকে অবহেলিত এবং একা মনে করেন। কিন্তু ইউনিভার্সিটি অব এডিনবার্গের একটি অ্যানালাইসিস গ্রুপ এবং ইউনিভার্সিটি অব সিডনির সাম্প্রতিক একটি গবেষণা জানিয়েছে ভিন্ন কথা। ৫০০০ মানুষের উপর জরিপ চালিয়ে পাওয়া তথ্য মতে, মেজ সন্তানরা ব্যক্তিগত এবং কর্ম জীবনে বেশি সফলতা লাভ করেন। মেজ সন্তানদের বেশি বুদ্ধিমান এবং সফল হওয়ার পেছনে অবশ্য বেশ কিছু কারণও আছে। বড় সন্তান অনেক বেশি মনোযোগ পায় বাবা-মায়ের। আর ছোট সন্তান পায় সহানুভূতি। এর মাঝে টিকে থাকতে হয় মেজ সন্তানের। তাই ছোট বেলা থেকেই তারা বেশি ধৈর্যশীল, সহনশীল ও ডিপ্লোম্যাটিক হয়। টিমে মিলেমিশে কাজ করার বিষয়টি মেজ সন্তান অন্যদের চাইতে বেশ ভালো পারে। বড় সন্তানটি যখন জন্ম নেয়, তখন সব কিছুই তার একার থাকে। কিন্তু মেজ সন্তানের ছোট বেলা থেকেই সব ভাগাভাগি করে নিতে হয়। এরপর ছোট সন্তানের জন্মের পরে তার সঙ্গেও নিজের সবকিছু শেয়ার করতে হয়। মিলেমিশে থাকার গুণটা তাই মেজ সন্তানের মাঝেই বেশি থাকে যা পরবর্তীতে কর্মক্ষেত্রে সফলতা নিয়ে আসে। ইগো’র সমস্যা মেজ সন্তানের মাঝে কম থাকে। পরিবারের মেজ সন্তান হওয়ার কারণে খুব বেশি মনোযোগ পাননা তারা। আর তাই অহেতুক ইগো বা অভিমান করার সমস্যাগুলো কাটিয়ে নিতে পারেন মেজ সন্তানরা। অল্পেই সন্তুষ্ট হওয়ার মানসিকতার কারণে ব্যক্তিগত জীবনেও মেজ সন্তানরা সফল। বন্ধু হিসেবেও মেজ সন্তানরা দারুণ। পরিবারে মনোযোগ না পেয়ে বাইরের জগতের প্রতি বেশি আকর্ষণ থাকে তাদের। সাধারণত তারা বাইরে খুবই বন্ধুবৎসল হয়। ঘরের বাইরেই আনন্দ খুঁজে নিতে পারে তারা। ফলে তাদের অনেক ভালো বন্ধু থাকে এবং নিজেরাও বন্ধু হিসেবে খুবই ভালো হয়।

মেজ সন্তান কেন স্মার্ট হয়?  বলা হয়ে থাকে মাঝের সন্তানটি বা সন্তানগুলো অন্যগুলোর চেয়ে বেশি স্মার্ট হয়ে থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এটাই বাস্তবতা। আবার এ-ও মনে হয়, মাঝের সন্তান অন্যদের চেয়ে বেশি অবহেলিত। গবেষণায় রীতিমতো এসব তথ্য উঠে এসেছে। তবে পেশা বা ব্যক্তিগত জীবনে মাঝেরগুলোই বেশি সফল হয়ে থাকে। এর পেছনে কিন্তু বাস্তবিক কারণ আছে। এগুলো জেনে নেওয়া যাক।

তারা কূটনৈতিক হয়ে থাকে  এটা স্বাভাবিক যে পরিবারের বড় সন্তান সবচেয়ে বেশি আদর-ভালোবাসা পায়। আবার সবচেয়ে ছোটটা সবার স্নেহধন্য হয়ে থাকে। তাকে নিয়ে সবাই ব্যস্ত থাকে। কিন্তু এই দুয়ের মাঝেরজন প্রায় সময়ই সবার নজরের বাইরে পড়ে যায়। ফলে এসব পরিস্থিতি মোকাবিলায় তারা ধৈর্য এবং কূটনীতির চর্চা চালায়। এগুলো আসলে টিকে থাকার গুণ। এভাবেই তারা অন্যদের চেয়ে অনেক বেশি স্মার্ট হয়ে ওঠে।  তারা টিম প্লেয়ার  বড় সন্তানরা সবই পায়। অন্তত পরেরজন জন্মগ্রহণের আগ পর্যন্ত বড়টার কোনো অভাব নেই। পরেরজন আসলে আবারো তাকে নিয়ে ব্যস্ততা শুরু হয়। কিন্তু বড়টাকে আদর ও আন্তরিকতার সবটুকু দেওয়া হয়েছে। তাদের জন্যে তখন বড়দের একটু কম সময়, সুযোগ ও ভালোবাসা থাকে। এগুলো মেনে নিয়ে অন্যান্য সন্তানের সঙ্গে একযোগে দিব্যি সময় কাটাতে পারে তারা। এ কারণে দ্বারা দলবদ্ধ কাজে খুবই দক্ষ হয়ে ওঠে।  নেতৃত্বের গুণাবলী  বড়টার চেয়েও স্মার্ট হয়ে ওঠে মাঝেরজন। এ কারণে ধীরে ধীরে তারা সব বিষয়ে পারদর্শিতা লাভ করে। কাজেই একটা সময় কোনো কাজ বা সিদ্ধন্ত গ্রহণের বিষয়ে অন্যদের কাছে আস্থাভাজন হয়ে ওঠে। নেতৃত্বের গুণাবলী মাঝেরজনের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।  বন্ধুত্ব গড়ে তোলা  বাড়িতে অন্যদের কম মনোযোগ পায় তারা। তাই বাড়ির বাইরে অন্যদের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তুলতে আগ্রহী হয়ে ওঠে। এভাবে অন্যদের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তোলার ক্ষেত্রে স্মার্ট হয় মাঝের সন্তান। দারুণ সব বন্ধুও মেলে সহজে।  তাদের অহংবোধ কম থাকে  বড় ও ছোটটার তুলনায় মাঝেরজনের অহংবোধ বিষয়ক সমস্যা কম থাকে। সেই একই কারণ, তারা অন্যদের চেয়ে কম যত্নআত্তি পায়। অনেক কিছুই সহনীয় হয়ে ওঠে তাদের কাছে। সহসা ইগো ঘটিত জালে পড়ে যায় না তারা। এ কারণেই তারা অনেক বেশি স্মার্ট।  যে ৫ কারণে মেজ সন্তানরা আলাদা ধরনের  পরিবারের মেজ সন্তানকে নিয়ে অনেক সময় বাবা-মায়ের দুশ্চিন্তার সীমা থাকে না। কারণ বেশিরভাগ সময়ই পরিবারের মেজ সন্তানকে হতে দেখা যায় স্বাধীনচেতা, আত্মনির্ভরশীল এবং একেবারে আলাদা মনমানসিকতার মানুষ। কিন্তু সত্যিকার অর্থে পরিবারের মেজ সন্তানটি হয়ে থাকে সবচেয়ে ভালো মনের মানুষ। অনেকেই বলে থাকেন, পরিবারের বড় সন্তানেরা অনেক বেশি আত্মত্যাগী ও ছোটরা উড়নচণ্ডী ধরনের হয়। কিন্তু মেজ জনের বৈশিষ্ট্য কিন্তু সহজে চোখে পড়ে না। তারা কতোটা চিন্তা করে চলেও তাও অনেকে বুঝতে পারে না। আর তাদের এই ধরনের চিন্তাই তাদের করে তোলে একেবারে আলাদা ও ভালো মানসিকতার।  মেজ ছেলেমেয়েরা সম্পর্কের মূল্য অনেক বেশি ভালো বুঝে বড় এবং ছোটদের সাথে কীভাবে ব্যবহার করতে হয়, তাদের সাথে কীভাবে চললে সম্পর্ক অনেক বেশি ভালো থাকে তা মেজরাই ভালো বুঝে। কারণ তিনি তার বড় ভাইবোনের কোনো ব্যবহারে কষ্ট পেয়ে থাকলে নিজের ছোটজনের সাথে কীভাবে ব্যবহার করতে হবে তা বুঝে যান। এবং তিনি নিজের বড় কারো সাথে যেভাবে ব্যবহার করবেন সেটাই তিনি তার ছোটজনের কাছ থেকে ফিরে পাবেন ভেবে, তাও নিজে থেকেই শিখে নেন। এই দুটি বিষয় কিন্তু পরিবারের বড় এবং ছোটো সন্তানেরা এভাবে ভাবতে পারে না।  আত্মনির্ভরশীল মানুষ হয়ে গড়ে ওঠে  বড় সন্তানের প্রতি বাবা মায়ের আলাদা এক ধরনের টান থাকেই। কারণ তিনি প্রথম সন্তান। এবং ছোটো সন্তান পরিবারের সকলের আদরের সন্তান হিসেবেই মানুষ হয়ে থাকে। কিন্তু সত্যি বলতে কি, বাবা-মা সন্তানদের মধ্যে পার্থক্য না করলেও বড় ও ছোটো সন্তানকে যেভাবে সময় দিয়ে থাকে, তা মেজো সন্তানকে দিতে পারেন না অনেক সময়েই। আর সে কারণেই পরিবারের মেজো সন্তানেরা অনেক বেশি আত্মনির্ভরশীল হয়ে গড়ে উঠে।  সবার সাথে সহজে মিশতে পারার গুণটি থাকে  বুঝতে পারার বয়স থেকে বড় ও ছোটো ভাইবোনের সাথে কীভাবে মিশতে হবে তা সহজাত প্রবৃত্তি থেকেই শিখে নেন মেজ জন। আর সে কারণেই ছোটোবড় সকলের সাথেই বেশ ভালো করে মিশতে পারার একটি গুণ তৈরি হয়ে যায়, যা পরিবারের বড় ও ছোটো সন্তানের মধ্যে খুব বেশি দেখা যায় না। এ কারণে আত্মীয়স্বজন থেকে সকলেই মেজ সন্তানটিকে বেশ পছন্দ করে ফেলেন।  ছোটো-বড় সকলকেই সঠিক মূল্যায়নে পরিচালনা করতে পারেন  কাকে কি বলে, কীভাবে চালানো সম্ভব এই গুণটিও পরিবারের বড় ও ছোটো ভাইবোনের মধ্যে থাকতে থাকতে রপ্ত হয়ে যায় পরিবারের মেজ সন্তানের। এতে করে বাইরের জগতেও কার সাথে কীভাবে কথা বলে তাকে পরিচালনা করা সম্ভব তা তৈরি হয় নিজে থেকেই।  অনেক বেশি সৃজনশীল হয়  বড় ও ছোটো সন্তানদের তুলনায় মেজ সন্তানটি অনেক বেশি সৃজনশীল হয়। তাদের চিন্তাভাবনা অন্য সকলের থেকে একটু আলাদা প্রকৃতির হয়। দেখা যায় বড় বা ছোটো ভাই বোন স্বাভাবিক নিয়মে জীবনযাপন করে বেশ বড় স্থানে প্রতিষ্ঠিত হয়ে কাজ করছেন কিন্তু মেজ জন নিজের সৃজনশীলতাকে প্রাধান্য দিয়ে নিজের নিয়মে চলছেন। অবশ্য একারণে বাবা-মায়ের দুশ্চিন্তা কারণ হতে দেখা যায় পরিবারের মেজ সন্তানকে নিয়ে।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>