কামশক্তি বৃদ্ধির পাশাপাশি গোলাপ ফুলের অসাধারণ সব উপকারিতা

আপনি কি কখনো চিন্তা করেছেন যে গোলাপ ফুলের অনেক গুলো স্বাস্থ্য সম্পৃক্ত উপকারিতা রয়েছে? প্রাচীন কাল থেকেই এই ফুলের ব্যাবহার হয়ে আসছে মানব দেহের, মনের এবং ত্বকের উপকারী বস্তু হিসাবে। গোলাপের পাপড়ি ত্বকের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধির অন্যতম উপকরণ হিসাবে যেমন পরিচিত তেমনি মানসিক চাপ দূরি করনে, যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে এবং প্রাকৃতিক ভাবে ওজন কমাতে সত্যি অনেক কার্যকরি। আজকে আমরা গোলাপ ফুলের এমন কিছু স্বাস্থ্য সম্পৃক্ত উপকারী দিক আলোচনা করবো যা সত্যি অনেক আশ্চার্যজনক।

১. ওজন নিয়ন্ত্রনে সাহায্য করে
গোলাপের পাপড়ি তে বিদ্যমান যৌগ মেটাবলিজমকে উন্নত করে এবং দেহের বিষ দূর করে যা ওজন কমাতে খুবই কার্যকরি। এক মুঠ গোলাপ পাপড়ী সেবনে সেন্স কে উন্নত করবে এবং আপনাকে প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত খাবার গ্রহন থেকে দূরে রাখবে যা ন্যাচারাল ভাবে ওজন কমাতে সাহায্য করবে।  টিপস এক গ্লাস গরম পানিতে ১০-১৫টি গোলাপের পাপড়ি ছেড়ে দিন এবং অপেক্ষা করুন যতক্ষন পর্যন্ত পানি গোলাপি রং ধারন না করে। এর মধ্যে আপনি সামান্য পরিমাণ মধু এবং এক চিমটি দারুচিনি গুড়া মিশিয়ে নিন। এই পানীয় পান করুন প্রতিদিন সকালে যা আপনার দেহের অতিরিক্ত চর্বি কমাতে সাহায্য করবে।

২. মানসিক চাপ এবং হতাশা দূর করে
হতাশা এবং মানসিক চাপ সাধারণত আসে অনিদ্রা এবং বিশ্রামহীনতার অভাবে যা অত্যন্ত বিরক্তবোধ এবং উদাসীনতা সৃষ্টি করে। গোলাপের পাপড়ি এবং এর নির্যাস এই ধরনের সমস্যা দূর করনে অধিক কার্যকরি। Department of Physiology and Pathology/LTF, University of Paraíba-Caixa এর একটি গবেষণা অনুসারে যখন গোলাপের নির্যাস যখন নাক দিয়ে নিঃশ্বাসের সাথে নেওয়া হয় তখন তা চরম প্রশান্তি সৃষ্টি করে।  টিপস গরম পানিতে কিছু গোলাপ পাপড়ি ছিটিয়ে নিন এবং সেই পানি দিয়ে গোসল করুন। গরম পানির তাপে গোলাপের সুগন্ধ পুরো ওয়াশরুমে ছড়িয়ে যাবে যা আপনার মনকে অনেক প্রশান্তি দিবে এবং দেহ কে করবে প্রফুল্ল।

৩. কামশক্তি বৃদ্ধিতে পৃথিবীতে গোলাপ শুধু মাত্র ভালোবাসারই চিহ্ন নয় পাশাপাশির এর রয়েছে কামশক্তি বৃদ্ধির অন্যতম ক্ষমতা। আয়ুর্ভেদা অনুসারে কামভাবনাকে আরো প্রশান্তিদায়ক করতে গোলাপের পাপড়ির অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে। তাদের মতে গোলাপের পাপড়ির দুটি উপকারী ডোজ আপনার দেহ, মন, হৃদপিন্ড এবং নার্ভাস প্রক্রিয়াকে পরিচালিত করতে সহায়তা করে যা সঙ্গমে আপনাকে দীর্ঘস্থায়ী করে তুলবে।  টিপস কিছু গোলাপ পাপড়ি নিয়ে তা ভালো করে ধুয়ে নিন এবং প্রতিদিন খেতে পারেন এতে আপনি শুধু শক্তিশালী এবং সতেজই অনুভব করবেন না পাশাপাশি আপনাকে সেক্সুয়ালি সক্রিয় রাখবে।

৪. পাইলস সমস্যা দূরি করনে সাহায্য করে
জি আপনি সঠিক শুনেছেন, গোলাপের পাপড়ী পাইলস দূরি করনে খুবই সহয়ায়তা করে। এর অন্যতম কারন হচ্ছে এর মধ্যে রয়েছে ফাইবার এবং পানি এছাড়াও রয়েছে হজম শক্তি বৃদ্ধিকারি যৌগ যা দেহে বিষ বের করে দিতে সাহায্য করে। ব্লিডিং পাইলস দূরি করনে এবং তৎক্ষণাৎ ব্যাথা দূর করনে খুবই কার্যকরি।  টিপস একমুঠ গোলাপ পাপড়ি নিন এবং ৫০ml পানি মিশিয়ে হামান দিস্তায় পিষিয়ে নিন। এইবার খালি পেটে খেয়ে ফেলুন। এইভাবে ৩ দিন সেবন করুন তাতে আপনি ব্লিডিং পাইলস থেকে মুক্তি পাবেন।

সতর্কতা:  যাদের এলার্জিজনিত সমস্যা আছে তারা অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে তারপর ব্যাবহার করুন।

ত্বকের জন্য গোলাপ ফুল
ত্বক উজ্জ্বল, টানটান ও মসৃণ করতে গোলাপফুল বেশ কার্যকর। গোলাপ জলের থেকে কাঁচা ফুলের পাঁপড়ি ত্বকের জন্য বেশি উপকারী। এই উপাদানটি ত্বকের রুক্ষতা ও কালচে ভাব দূর করে চেহারার জৌলুস ধরে রাখতে সাহায্য করে। স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ত্বকের জন্য কীভাবে মুখে গোলাপের পাঁপড়ি ব্যবহার করবেন সে সম্বন্ধে কয়েকটি পরামর্শ দেওয়া হয়েছে জীবনধারাবিষয়ক ভারতীয় ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাইয়ের লাইফস্টাইল বিভাগে:
১. নিয়মিত গোলাপফুলের রস মুখে লাগান। এটি প্রাকৃতিক টোনার হিসেবে কাজ করে, যা চেহারার বলিরেখা দূর করে ত্বককে টানটান করে।  ২. গোলাপফুলের রস ত্বককে সতেজ রাখে। দুশ্চিন্তা দূর করতে কয়েকটি গোলাপের পাঁপড়ি মুখে ঘষে কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ফেলুন। এটি মানসিক দুশ্চিন্তা দূর করার পাশাপাশি ত্বকের রুক্ষতাও দূর করবে।  ৩. যাঁদের ত্বক অতিরিক্ত শুষ্ক ও স্পর্শকাতর, তাঁরা নিয়মিত ত্বকে গোলাপফুলের এসেনশিয়াল অয়েল ব্যবহার করুন। এটি ত্বককে নরম ও মসৃণ করে।  ৪. গোলাপফুলে ভিটামিন সি রয়েছে, যা ত্বকের নতুন কোষ জন্মাতে সাহায্য করে। ত্বকের কালচে ভাব, ব্রণের দাগ ও খসখসে ভাব দূর করতে নিয়মিত গোলাপফুলের পাঁপড়ির সঙ্গে মধু মিশিয়ে মুখে লাগান। পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা গোলাপের পাঁপড়ি পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এরপর এই পাঁপড়ি শিলপাটায় বেটে এর সঙ্গে চার টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার পানি দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>