কোনটি বেশি উপকারী, লাল নাকি সবুজ ক্যাপসিকাম?

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে খাবারে সহায়ক উপকরণ হিসেবে ক্যাপসিকাম ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ক্যাপসিকাম বেশ কয়েকটি রঙের হয়ে থাকে। মূলত আমাদের দেশে লাল ও সবুজ ক্যাপসিকাম বেশি দেখা যায়। দেশীয় সবজি না হলেও এর চাষ ধীরে ধীরে বাড়ছে এই দেশে। সবজি হিসেবে চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। লাল ও সবুজ ক্যাপসিকামের মধ্যে কোনটি বেশি উপকারী? এ বিষয়ে কথা হয় পুষ্টিবিদ আখতারুন্নাহার আলোর সঙ্গে।

লাল ক্যাপসিকাম
লাল ও সবুজ ক্যাপসিকামের মধ্যে লালটি বেশি পুষ্টিগুণসম্পন্ন। এতে প্রচুর ভিটামিন সি রয়েছে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশি থাকে। লাল ক্যাপসিকামটি খেলে ত্বকের স্বাভাবিকতা বজায় থাকে। চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়। চোখ ভালো থাকে। এতে কোলেস্টেরল কম থাকার কারণে মোটা হওয়ার প্রবণতা কমে যায়।

ত্বক পরিষ্কার রাখতে ক্যাপসিকাম বেশ উপকারী। ত্বকের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত রোগের ক্ষেত্রে ক্যাপসিকাম রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি করে। বিশেষ করে ত্বকের ব্রণ ও র‍্যাশের হাত থেকে রক্ষা করে। লাল ক্যাপসিকাম যেকোনো ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে। ক্যাপসিকাম খেলে মাথার তালুর রক্ত চলাচল বজায় রাখতে সাহায্য করে। নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে ক্যাপসিকাম। খনিজের অভাব পূরণ করে। পটাশিয়াম বেশি থাকার কারণে বয়স্কদের জন্য লাল ক্যাপসিকাম খাওয়াই ভালো। বিভিন্ন উপকরণ বেশি থাকার কারণে বাজারে লাল ক্যাপসিকামের চাহিদা তুলনামূলক বেশি।

সবুজ ক্যাপসিক্যাম
সবুজ ক্যাপসিকামও বিভিন্ন পুষ্টি উপকরণে ভরপুর। এই ক্যাপসিকামটি একটু অল্পবয়সীদের জন্য উপকারী। এ ক্যাপসিকামে ক্যাপসাইসিনস নামক উপাদান ডিএনএর সঙ্গে যুক্ত হয়ে ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদানের সংযুক্ত হওয়াতে বাধা দেয়। এটি ক্যানসার প্রতিরোধে কাজ করে। এটি মাইগ্রেন, সাইনাস, ইনফেকশন, দাঁতে ব্যথা, অস্টিওআর্থ্রাইটিস ইত্যাদি ব্যথা দূর করতে কাজ করে। সবুজ ক্যাপসিকাম শরীরের বাড়তি ক্যালরি পূরণে কাজ করে। ফলে উচ্চ চর্বি জমে না, একই সঙ্গে ওজনও বৃদ্ধি পায় না। সবুজ ক্যাপসিকাম রক্তের অণুচক্রিকা উদ্দীপিত করে সংক্রমণ রোধ করে থাকে।

সবাই এখন যা পড়ছে :-

একদিনের ব্যবধানে বেগুনের মূল্য দ্বিগুণ হয়েছে!

রাজধানীর অন্যতম পাইকারি পণ্যের আড়ৎ কারওয়ান বাজারে একদিনের ব্যবধানে বেগুনের মূল্য দ্বিগুণ হয়েছে। একইসঙ্গে সপ্তাহ ব্যবধানে মাছ-সবজির মূল্য কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। শনিবার (১৯ মে) সকালে কারওয়ান বাজার ঘুরে এ তথ্য জানা গেছে। এ বাজারে একদিনের ব্যবধানে শুধু লম্বা বেগুনের দাম হয়েছে দিগুণ। শুক্রবার যে বেগুন কেজিপ্রতি ৬০ টাকা বিক্রি হয়েছে শনিবার তা ১২০ টাকায়ও মিলছে না।

অন্যান্য সবজির মধ্যে ঝিঙা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কাঁচাকলার হালি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, মিষ্টি কুমড়া (মাঝারি সাইজের) একটির দাম ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, করলা ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় আলু কেজিতে ২ থেকে ৩ টাকা বেড়ে ২০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৪০ টাকা, টমেটো ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারেও ঊর্ধ্বমুখী চিত্র। পাঙ্গাস মাছ গত সপ্তাহের চেয়ে এ সপ্তাহের দাম প্রতি কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সিলভার কার্প মাঝারি সাইজের কেজি ১৩০ টাকা, মাঝারি সাইজের তেলাপিয়া কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়।

রমজানের আগে ইলিশের দাম কম ছিল বলে জানান বিক্রেতারা। ৮০০ গ্রাম ওজনের প্রতি হালি ইলিশ তিনদিন আগেও ২৪০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে যা শনিবার বিক্রি হচ্ছে ৩০০০ টাকায়। ৬০০ গ্রাম ওজনের ইলিশও হালিপ্রতি বেড়েছে ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা। ১৮০০ টাকা হালির ইলিশ শনিবার বিক্রি হচ্ছে ২৪০০ টাকায়।

অস্বস্তিকর হেঁচকি? দৌড়ে পালাবে ! জেনে নিন ঘরোয়া কিছু টিপস !

হেঁচকি এমন একটি অস্বস্তিকর সময় যখন আমাদের আর কিছুই ভালো লাগে না। এই হেঁচকি কমাতে আমরা যে কত কিছুই করে থাকি। অতিরিক্ত পানি বা খাবার খেলেই এই হেঁচকি উঠতে শুরু করে। আর তখন বাড়ে অস্বস্তি বেড়ে যায়। ব্যথা করতে থাকে ঘাড় এবং মাধা। যতক্ষণ না কমছে এই হেঁচকি ততক্ষণ রয়ে যায় অস্বস্তি। আর তাই আজ আমরা জেনে নেই এই হেঁচকি থেকে বাঁচার ৯টি ঘরোয়া টোটকা। হেঁচকি কমাতে খেতে পারেন লেবু। দেখবেন খুব সহজেই কমে গেছে হেঁচকি। অনেক সময়ে এসিডিটি থেকে হেঁচকি হয়। তখন প্রচুর পরিমাণে পানি খান। আর এর সাথে নিতে পারেন এসিডিটির ওষুধ। এই হেঁচকির সময়ে যদি আপনাকে কেউ ভয় দেখান আর তাতে আপনি ভয় পেলে দেখবেন হঠাৎই কমে গিয়েছে হেঁচকি। এই হেঁচকি কমাতে পানি দিয়ে গার্গেল করুন। দেখবেন খুব সহজেই কমে গেছে আপনার হেঁচকি। একটু দূরত্ব রেখে পানি পান করতে থাকুন। একসময় দেখবেন কমে গিয়েছে আপনার এই অস্বস্তি। লবণের রয়েছে নিজস্ব এক গন্ধ। আর এই গন্ধ আপনাকে পরিত্রাণ দিতে পারে এই অস্বস্তিকর অবস্থা থেকে। আর তাই শুঁকুন লবণের গন্ধ। এটি আসলে আদি একটি উপায়। আর এই উপায়ে মিলবে স্বস্তি। হাতে আকুপ্রেশারের মাধ্যমেও কমে যায় হেঁচকি। নাক ধরে নিঃশ্বাস বন্ধ করে রাখুন। এই পদ্ধতি দিবে আপনাকে আরাম। যতক্ষণ না কমে হেঁচকি নিতে থাকুন এই পদ্ধতি।

এটি আরেকটি ঘরোয়া পদ্ধতি। বের করে রাখুন আপনার জিভ, দেখবেন কিছুক্ষণের মধ্যেই মিলেছে আরাম। কিছুক্ষণের মধ্যে কমে যাবে আপনার অস্বস্তিকর সময়।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>