কোল্ড ড্রিংক খাওয়ার পর শরীরে কী ঘটে? পড়লে চমকে যাবেন!

কোল্ড ড্রিংক খাওয়ার অভ্যেস থাকে অনেকেরই। আর বিভিন্ন কোল্ড ড্রিংকের মধ্যে কোকা কোলার পরিচিতি বিশ্বজোড়া। সাধারণ ভাবে ‘কোক’ জাতীয় ঠান্ডা পানীয় যে শরীরের কোনও উপকার করে না, বরং ক্ষতিই করে, এ কথা অনেকেরই জানা। কিন্তু শরীরে ঠিক কী ধরনের প্রভাব ফেলে এই জাতীয় পানীয়? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে স্বাস্থ্যবিশেষজ্ঞ ওয়েড মেরিডিথ একটি বিশেষ গবেষণা করেন যাতে দেখানো হয়, কোকা কোলার একটি ক্যানের পানীয় পান করার পরবর্তী এক ঘন্টায় শরীরের ভিতর ঠিক কী কী ঘটে। সেই গবেষণাপত্র পাঠ করে অনেকেই শিউরে উঠেছেন। আসুন, জেনে নেওয়া যাক, কোকা কোলা পান করার এক ঘন্টার মধ্যে কী কী ঘটে যায় শরীরে—

প্রথম ১০ মিনিট: এক ক্যান কোকা কোলার মাধ্যমে প্রায় ১০ চামচের মতো চিনি প্রবেশ করে শরীরে। এমনিতে এই পরিমাণ চিনি এক সঙ্গে খেলে বমি হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু পানীয়ে মিশ্রিত ফসফরিক অ্যাসিড এই বমিভাবকে দমিয়ে রাখে।

২০ মিনিট: রক্তে শর্করার মাত্রা অতি দ্রুত বেড়ে যাতে থাকে। পরিণামে লিভার শরীরের যে কোনও অংশে সঞ্চিত ফ্যাটকে গলিয়ে দিতে শুরু করে।

৪০ মিনিট: শরীরে ক্যাফিন পূর্ণমাত্রায় শোষিত হয়ে যায়। চোখের তারা বর্ধিত হয়, রক্তচাপ বৃদ্ধি পায়। লিভারের মাধ্যমে রক্তে শর্করা মিশতে শুরু করে। মস্তিস্কের অ্যাডেনোসাইন রিসেপ্টরগুলো ব্লকড হয়ে যায়। এর ফলে ঘুম-ঘুম ভাব প্রতিহত হয়।

৪৫ মিনিট: শরীরে ডোপামাইন উৎপাদনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। মস্তিস্কের সুখ প্রদায়ী অংশগুলো উদ্দীপিত হয়। এই পদ্ধতিতে হেরোইনের মতো মাদকও শরীরকে উদ্দীপিত করে।

৪৫-৬০ মিনিট: ক্ষুদ্রান্তে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং জিঙ্ক দানা বাঁধতে থাকে। এর ফলে মেটাবলিজম আবার হঠাত করে অনেকটা বেড়ে যায়। এর সঙ্গে শর্করা এবং কৃত্রিম মিষ্টি মিলে গিয়ে শরীর থেকে ক্যালসিয়াম নির্গমনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। এর প্রভাব পড়ে হাড়ে। কারণ হাড় থেকেই এই বেরিয়ে যাওয়া ক্যালসিয়ামের বেশিরভাগটা সংগৃহীত হয়।

৬০ মিনিটের পরে: ১ ঘন্টার পরেও কোল্ড ড্রিংকের প্রভাব শরীরে শেষ হয় না। কোল্ড ড্রিংক পানের ফলে শরীরে শুরু হওয়া তোলপাড় যখন শান্ত হয়ে আসে, তখন শরীরে শর্করার প্রবল চাহিদা তৈরি হয়। এর ফলে ক্লান্তিবোধ হয়। এবং প্রস্রাবের সঙ্গে শরীরের জরুরি পুষ্টি, এবং জল, যা শরীর-গঠনের কাজে লাগতে পারত, তা শরীর থেকে বেরিয়ে যায়।

সবাই এখন যা পড়ছে :-

অস্বস্তিকর হেঁচকি? দৌড়ে পালাবে ! জেনে নিন ঘরোয়া কিছু টিপস !

হেঁচকি এমন একটি অস্বস্তিকর সময় যখন আমাদের আর কিছুই ভালো লাগে না। এই হেঁচকি কমাতে আমরা যে কত কিছুই করে থাকি। অতিরিক্ত পানি বা খাবার খেলেই এই হেঁচকি উঠতে শুরু করে। আর তখন বাড়ে অস্বস্তি বেড়ে যায়। ব্যথা করতে থাকে ঘাড় এবং মাধা। যতক্ষণ না কমছে এই হেঁচকি ততক্ষণ রয়ে যায় অস্বস্তি। আর তাই আজ আমরা জেনে নেই এই হেঁচকি থেকে বাঁচার ৯টি ঘরোয়া টোটকা। হেঁচকি কমাতে খেতে পারেন লেবু। দেখবেন খুব সহজেই কমে গেছে হেঁচকি। অনেক সময়ে এসিডিটি থেকে হেঁচকি হয়। তখন প্রচুর পরিমাণে পানি খান। আর এর সাথে নিতে পারেন এসিডিটির ওষুধ। এই হেঁচকির সময়ে যদি আপনাকে কেউ ভয় দেখান আর তাতে আপনি ভয় পেলে দেখবেন হঠাৎই কমে গিয়েছে হেঁচকি। এই হেঁচকি কমাতে পানি দিয়ে গার্গেল করুন। দেখবেন খুব সহজেই কমে গেছে আপনার হেঁচকি। একটু দূরত্ব রেখে পানি পান করতে থাকুন। একসময় দেখবেন কমে গিয়েছে আপনার এই অস্বস্তি। লবণের রয়েছে নিজস্ব এক গন্ধ। আর এই গন্ধ আপনাকে পরিত্রাণ দিতে পারে এই অস্বস্তিকর অবস্থা থেকে। আর তাই শুঁকুন লবণের গন্ধ। এটি আসলে আদি একটি উপায়। আর এই উপায়ে মিলবে স্বস্তি। হাতে আকুপ্রেশারের মাধ্যমেও কমে যায় হেঁচকি। নাক ধরে নিঃশ্বাস বন্ধ করে রাখুন। এই পদ্ধতি দিবে আপনাকে আরাম। যতক্ষণ না কমে হেঁচকি নিতে থাকুন এই পদ্ধতি।

এটি আরেকটি ঘরোয়া পদ্ধতি। বের করে রাখুন আপনার জিভ, দেখবেন কিছুক্ষণের মধ্যেই মিলেছে আরাম। কিছুক্ষণের মধ্যে কমে যাবে আপনার অস্বস্তিকর সময়।

রোগ নিরাময়ে মুলার ভূমিকা, দারুন সব উপকারিতা

মুলার ঝাঁঝ ওয়ালা গন্ধের কারণে অনেকে নাক কুঁচকে ফেলেন। তাই আর খাওয়া হয়ে ওঠে না। অথচ এই সবজিটি হতে পারে আপনার অসংখ্য রোগ থেকে মুক্তির উপায়। সহজলভ্য এবং পর্যাপ্ততা থাকায় আপনিও অনায়াসে খেতে পারেন অসাধারণ উপকারী এই সবজি। প্রতি ১০০ গ্রাম মুলাতে প্রোটিন আছে ০.৭ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট ৩.৪ গ্রাম, ভিটামিন ‘এ’ ০.০ আইইউ, ফ্যাট ০.১ গ্রাম, আঁশ ০.৮ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৫০ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ২২ মিলিগ্রাম, লৌহ ০.৪ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ১৩৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন ‘সি’ ১৫ মিলিগ্রাম। বাজারে পাওয়া সাদা ও লাল দুই ধরনের মুলাতে আছে সমান পুষ্টিগুণ। মজার বিষয় হল, মুলার চেয়ে এর পাতার গুণ অনেক বেশি। কচি মুলার পাতা শাক হিসেবে খাওয়া যায় এবং খুবই মজাদার।

পাতাতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ, সি পাওয়া যায়। খাবার উপযোগী ১০০ গ্রাম মুলাপাতায় আছে আমিষ ১.৭ গ্রাম, শ্বেতসার ২.৫ গ্রাম, চর্বি ১.০০ গ্রাম, খনিজ লবণ ০.৫৭ গ্রাম, ভিটামিন সি ১৪৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন এ বা ক্যারোটিন ৯ হাজার ৭০০ মাইক্রোম ভিটামিন বি-১০.০০৪ মিলিগ্রাম, বি-২০.১০ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩০ মিলিগ্রাম, লৌহ ৩.৬ মিলিগ্রাম, খাদ্যশক্তি ৪০ মিলিগ্রাম, পটাসিয়াম ১২০ মিলিগ্রাম।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>