কালোজিরার সাহায্যে মাথায় টাক পড়া বন্ধ করুন! জেনে নিন পদ্ধতি!

কালো জিরে দিয়ে সাদা আলুর তরকারি আর ফুলকো লুচি অনেকের কাছেই রোববারের আদর্শ জলখাবার | কিন্তু অনেকেই জানে না কালো জিরে দিয়ে মাথায় টাক পড়া বন্ধ করা যায় | অবশ্য শুধুমাত্র টাক নয় অকালপক্কতা এবং চুল পড়াও কমিয়ে দেয় | এছাড়াও প্রাকৃতিক ময়শ্চারাইজারের কাজ করে কালো জিরে |

আসুন দেখে নিন কী করে কালো জিরের সাহায্যে মাথায় টাক আর চুল পড়া কমাবেন |

⇒কালো জিরে জলে ভালো করে ফুটিয়ে নিন | জল ঠান্ডা হয়ে গেলে তা ছেঁকে নিন | যে অংশে চুল উঠে যাচ্ছে সেই জায়গায় ভালো করে মিনিট ১৫ ধরে হাল্কা হাতে ম্যাসাজ করুন | আধা ঘন্টা রেখে চুল ধুয়ে নিন | একদিন অন্তর এমন করুন |

⇒অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার ও চুল পড়া কমায় | ফলে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার আর কালো জিরের কম্বিনেশন আরো অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে ওঠে | এবং হেয়ার প্রবলেম অনেক কম হয় | কালো জিরে ফোটানো জল ঠান্ডা করে ছেঁকে নিন | এতে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার মিশিয়ে নিন | এই মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে নিন | চুল শুকিয়ে নিন | সেই দিন বা পরের দিন চুলে শ্যাম্পু করুন | এক মাস নিয়মিত এই মিশ্রণ চুলে লাগান |

⇒কালো জিরে এবং অলিভ অয়েল দুটোই অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল | ফলে চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে | কালো জিরে অলিভ অয়েলে দিয়ে ফুটিয়ে নিন | ঠান্ডা হলে ছেঁকে নিন | চুলের গোড়ায় এই তেল ভালো করে ম্যাসাজ করুন | ৩০-৪৫ মিনিট রেখে চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে নিন |

⇒কালো জিরে গুঁড়ো করে তা হেনার সঙ্গে মিশিয়ে একটা পেস্ট বানান | আধ ঘন্টা রেখে জল দিয়ে ধুয়ে নিন | চুল পড়া সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধ করতে সপ্তাহে দু‘দিন এই মিশ্রণ লাগান |

⇒কালো জিরেতে অ্যান্টি ফাংগাল প্রপার্টি থাকায় দ্রুত চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে | নারকেল তেলের সঙ্গে কালো জিরে মিশিয়ে লাগালে চুল পড়া তো কমবেই একই সঙ্গে অকালপক্কতা দূর হবে | নারকেল তেলে কালো জিরে ফুটিয়ে তা ঠান্ডা করে মাথায় লাগাতে পারেন বা কালো জিরে গুঁড়ো করে তা নারকেল তেলে মিশিয়েও লাগাতে পারেন | এতে চাইলে এক চামচ মধুও মিশিয়ে নিতে পারেন | চুলের গোড়ায় নারকেল তেল ভালো করে লাগিয়ে নিন | ২০ মিনিট রেখে একটা তোয়ালে গরম জলে ভিজিয়ে তা চুলে জড়িয়ে রাখুন | সপ্তাহে অন্তত এক বার এটা করুন |

⇒চুলের গোড়ায় প্রথমে লেবুর রস লাগিয়ে নিন | শুকিয়ে গেলে কালো জিরে ফোটানো জল লাগান | এইভাবে চুল পড়া কমানোর সঙ্গে নতুন চুল গজাতেও সাহায্য করে | আধ ঘন্টা পরে চুল ধুয়ে নিন |

সবাই এখন যা পড়ছে :-

অস্বস্তিকর হেঁচকি? দৌড়ে পালাবে ! জেনে নিন ঘরোয়া কিছু টিপস !

হেঁচকি এমন একটি অস্বস্তিকর সময় যখন আমাদের আর কিছুই ভালো লাগে না। এই হেঁচকি কমাতে আমরা যে কত কিছুই করে থাকি। অতিরিক্ত পানি বা খাবার খেলেই এই হেঁচকি উঠতে শুরু করে। আর তখন বাড়ে অস্বস্তি বেড়ে যায়। ব্যথা করতে থাকে ঘাড় এবং মাধা। যতক্ষণ না কমছে এই হেঁচকি ততক্ষণ রয়ে যায় অস্বস্তি। আর তাই আজ আমরা জেনে নেই এই হেঁচকি থেকে বাঁচার ৯টি ঘরোয়া টোটকা। হেঁচকি কমাতে খেতে পারেন লেবু। দেখবেন খুব সহজেই কমে গেছে হেঁচকি। অনেক সময়ে এসিডিটি থেকে হেঁচকি হয়। তখন প্রচুর পরিমাণে পানি খান। আর এর সাথে নিতে পারেন এসিডিটির ওষুধ। এই হেঁচকির সময়ে যদি আপনাকে কেউ ভয় দেখান আর তাতে আপনি ভয় পেলে দেখবেন হঠাৎই কমে গিয়েছে হেঁচকি। এই হেঁচকি কমাতে পানি দিয়ে গার্গেল করুন। দেখবেন খুব সহজেই কমে গেছে আপনার হেঁচকি। একটু দূরত্ব রেখে পানি পান করতে থাকুন। একসময় দেখবেন কমে গিয়েছে আপনার এই অস্বস্তি। লবণের রয়েছে নিজস্ব এক গন্ধ। আর এই গন্ধ আপনাকে পরিত্রাণ দিতে পারে এই অস্বস্তিকর অবস্থা থেকে। আর তাই শুঁকুন লবণের গন্ধ। এটি আসলে আদি একটি উপায়। আর এই উপায়ে মিলবে স্বস্তি। হাতে আকুপ্রেশারের মাধ্যমেও কমে যায় হেঁচকি। নাক ধরে নিঃশ্বাস বন্ধ করে রাখুন। এই পদ্ধতি দিবে আপনাকে আরাম। যতক্ষণ না কমে হেঁচকি নিতে থাকুন এই পদ্ধতি।

এটি আরেকটি ঘরোয়া পদ্ধতি। বের করে রাখুন আপনার জিভ, দেখবেন কিছুক্ষণের মধ্যেই মিলেছে আরাম। কিছুক্ষণের মধ্যে কমে যাবে আপনার অস্বস্তিকর সময়।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>