মাঝে মধ্যে চকোলেট খান তো? জেনে নিন কেন খাবেন!

Share This
Tags

মাঝে মাঝে ছোট বেলায় ফিরে গেলে কিন্তু শরীরটা বেঁচে যাবে। মানে! কী আবোল-তাবোল বোকছেন মশাই। বয়স বেড়ে গেলে কী আর তা কমানো যায়! ঠিক কথা, কমানো যায় না। কিন্তু ছোট বেলার কিছু কিছু অভ্যাস ফিরিয়ে আনা যায় তো! যেমন ধরুন চকোলেট খাওয়ার অভ্যাস। গবেষণা বলছে প্রতিদিন অল্প করে ডার্ক চকোলেট খেলে একাধিক মারণ রোগ ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। ফলে আয়ু বৃদ্ধি পায় চোখে পরার মতো। আসলে ডার্ক চকোলেটে উপস্থিত কোকো নামক উপাদানটি শরীরের একাধিক উপকারে লেগে থাকে। যেমন ধরুন…

ডায়াবেটিস রোগকে দূরে থাকে: সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব চকোলেটে কোকোর মাত্রা বেশি থাকে, এমন চকোলেট খেলে ইনসুলিনের উৎপাদন বেড়ে যায়। ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার সুযোগই পায় না। আসলে কোকোতে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা বিটা সেলের কর্মক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি ইনসুলের উৎপাদন বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। ফলে ডায়াবেটিস ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না।

পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়: বেশি মাত্রায় কোকো দিয়ে বানানো ১০০ গ্রাম ডার্ক চকোলেটে প্রায় ১১ গ্রাম ফাইবার, দিনের চাহিদার ৬৭ শতাংশ আয়রন, দিনের চাহিদার ৫৮ শতাংশ ম্যাগনেসিয়াম, দৈনিক চাহিদার ৮৯ শতাংশ কপার এবং প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, জিঙ্ক এবং সেলেনিয়াম রয়েছে। এই সবকটি উপাদান শরীরের গঠনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে ব্রেনের কর্মক্ষমতা বাড়াতেও সাহায্য করে। তাই তো প্রতিদিন কম করে ১০০ গ্রাম করে ডার্ক চকোলেট খেলে শরীর নিয়ে ভাবার আর কোনও প্রয়োজনই পরে না।

ক্যান্সার প্রতিরোধক: ডার্ক চকোলেটে উপস্থিত প্রচুর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরের অন্দরে লুকিয়ে থাকা ক্ষতিকর টক্সিকদের টেনে টেনে দেহের বাইরে নিয়ে আসে। ফলে টক্সিক উপাদানের প্রভাবে ক্যান্সার সেলের জন্ম নেওয়ার আশঙ্কা অনেক কমে যায়। প্রসঙ্গত, ডার্ক টকোলেটে রয়েছে পলিফেনল, ফ্লেবানল, ক্য়াটাচিন সহ একাধিক শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখে: চকোলেটে ফ্লেভোনল নামে একটি উপাদান রয়েছে, যা এন্ডোথেলিয়াম, মানে আর্টারির আবরণে নাইট্রিক অক্সাইড তৈরি করে। এই গ্যাসটি আর্টারির স্ট্রেস কমানোর পাশাপাশি রক্তচাপ কমাতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। শুধু তাই নয়, সারা শরীরে রক্তের প্রবাহ বাড়াতেও ডার্ক চকোলেট বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়: বেশ কিছু গবেষণায় দেখে গেছে নিয়মিত ডার্ক চকোলেট খাওয়ার অভ্যাস করলে রক্তে বাজে কোলেস্টরলের মাত্রা কমতে শুরু করে। অন্যদিকে ভাল কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ায়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই হার্টের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে নানাবিধ হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও অনেকাংশে হ্রাস পায়। তাই পরিবারে যদি হার্টের রোগের ইতিহাস থাকে, তাহলে সময় থাকতে থাকতে ছোট বেলার মতো চকোলেটের সঙ্গে বন্ধুত্ব পাতান, দেখবেন উপকার পাবেন।

ব্রেন ফাংশনের উন্নতি ঘঠে: বেশি মাত্রায় কোকো দিয়ে বানানো চকোলেট খেলে মস্তিষ্কে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্তের সরবরাহ বেড়ে যায়। ফলে কগনেটিভ ফাংশনের উন্নতি ঘটার কারণে স্মৃতিশক্তি, মনোযোগ এবং বুদ্ধির বিকাশ ঘঠে। আসলে কোকোতে উপস্থিত ক্যাফিন এবং থিয়োব্রোমাইন এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

সবাই এখন যা পড়ছে :-

খুব বেশি পর্ন দেখেন? জানেন কী ক্ষতি করছেন নিজের!

ব্যস্ত জীবনের মধ্যে পর্ন দেখার জন্য অনেকেই সময় বের করে নেন। অনেকেই দিনান্তে পর্ন দেখেন সাময়িক আনন্দলাভের আশায়। কিন্তু জানেন কি, বেশি মাত্রায় পর্ন দর্শন কতটা সর্বনাশ করছে আপনার? সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, যাঁরা নিয়মিত পর্ন দেখেন, তাঁরা বিভিন্ন ধরনের সমস্যায় ভুগছেন। পৃথিবীর একাধিক দেশের পুরুষ, নারীর উপর এই সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে ভয়ঙ্কর সব সমস্যার জন্ম দিচ্ছে এই অভ্যাস। মানসিক বিকৃতির জন্ম দেয়। অতিরিক্ত পর্ন মস্তিস্কের উপর চাপ ফেলে। স্বাভাবিক বিচক্ষণতা লুপ্ত হতে থাকে। বাস্তব থেকে দূরে সরিয়ে দেয় মানুষকে। বাস্তব এবং অবাস্তবের মধ্যে এক অদ্ভুত গুলিয়ে দেওয়া পরিস্থিতি তৈরি করে।

ক্রমশ নিজের ব্যক্তিগত আবেগ, ইমোশনের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারাতে শুরু করে। হঠাৎ রেগে যাওয়াও এক অন্যতম লক্ষণ। সর্বোপরি একটা সুস্থ জীবন থেকে আপনাকে ক্রমশ দূরে সরিয়ে নিয়ে যাবে আপনার পর্ন-দর্শন। শুধু জীবনসঙ্গী নয়, সন্তানদের থেকেও দূরে সরিয়ে নিয়ে যাবে আপনাকে। কারণ অতিরিক্ত পর্ন দেখলে পৃথিবীর স্বাভাবিক, নিষ্পাপ আনন্দ আপনি উপভোগ করতেই ভুলে যাবেন ধীরে ধীরে। ব্যক্তিগত জীবন অসুখী করে তোলে। সঙ্গীকে সুখী করা বা সঙ্গীর থেকে আনন্দ পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় আপনার এই অভ্যাস।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>