যে চায়ে মাত্র ১ দিনেই সেরে যাবে খুসখুসে কাশি!

আবহাওয়া জানিয়ে দিচ্ছে আসছে শীতকাল, একই সঙ্গে কড়া নাড়তে শুরু করেছে নানা রোগ-বালাই। এসময় দেখা দেয় ত্বক ও শ্বসন তন্ত্রের বিভিন্ন জটিলতা। জ্বর সর্দি ও ঠাণ্ডা কাশি কিছুদিনের মধ্যেই সেরে গেলেও জ্বালাতে থাকে শুকনো খুসখুসে কাশি। এটা সহজে সারতেও চায় না। এটা সত্যিই ভীষণ বিরক্তিকর। চিকিৎসকের মতে, কাশি একটি সাধারণ রোগ। আমাদের সবার প্রায়শই বিভিন্ন সময়ে কাশি হয়ে থাকে। কাশি যেহেতু বিশেষ কোনও ব্যাধি নয় তাই আমরা এর জন্য কোনও প্রকার ওষুধ বা প্রতিকারক সেবন করি না। কিন্তু একটানা খুসখুসে কাশি খুব বিরক্তিকর। অনেক ক্ষেত্রে আবার কফ জমাট বেধে ভয়ানক কাশিও হয়। সাধারণত ঠাণ্ডা ও ফ্লুয়ের কারণে কাশি হয়। তবে অ্যালার্জি, অ্যাজমা, এসিড রিফ্লাক্স, শুষ্ক আবহাওয়া, ধূমপান, এমনকি কিছু ওষুধ সেবনের ফলেও এ সমস্যা তৈরি হতে পারে।

তবে একটু সচেতন হলে ওষুধ না খেয়েও এই শুকনো কাশি থেকেও রেহাই পাওয়া সম্ভব। চাপাতি ছাড়াও প্রাকৃতিক কিছু উপাদানের মিশ্রণে তৈরি চা পান করলে মাত্র এক দিনেই সেরে যাবে খুসখুসে কাশি! তাহলে সময় নষ্ট না করে আসুন জেনে নিই সেই আজব চা তৈরির নিয়ম :

⇒এক চা চামুচ করে হলুদে এবং গোলমরিচের গুঁড়ো আধকাপ পানিতে জ্বাল দিন। কিছুক্ষণ পরে এতে একটি লবঙ্গ দিয়ে আরও দুই মিনিট জ্বাল দিন। প্রতিদিন এক টেবিল চামুচ মধু মিশিয়ে এ চা পান করুন।

⇒এক কাপ পানিতে সমপরিমাণ হলুদের গুঁড়ো এবং মৌরি দিয়ে হারবাল চা বানিয়ে দিনে তিনবার করে পান করলে উপকার পাওয়া যায়।

⇒খুসখুসে কাশি দূর করতে পেঁয়াজ খুবই কার্যকর। আধচামুচ পেঁয়াজের রস এবং এক চা চামুচ মধু এক সঙ্গে মিশিয়ে  চায়ের মতো দিনে দু’বার করে পান করুন। পেঁয়াজের ঝাঁজ খুসখুসে কাশি কমাতে সহায়তা করবে।

⇒আদার অ্যান্টি ইনফ্লামেটরী উপাদান গলার অস্বস্তিকরভাব দূর করে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক কাপ আদা চা পান করতে পারেন। এছাড়া এক কাপ পানিতে আদা কুচি জ্বাল দিয়ে দিনে ৩-৪ বার পান করে দেখুন, শুষ্ক কাশি কমে যাবে।

⇒প্রতিদিন ১-৩ বার  এক টেবিল চামুচ করে বিশুদ্ধ মধু গ্রহণ করুন। সবচেয়ে ভাল হয় ঘুমানোর আগে এক চামুচ মধু খেয়ে নিলে। মধুর অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান কাশি প্রতিরোধে কার্যকর।

⇒রসুন খুসখুসে কাশি সারাতে দারুন কাজ করে। রসুনে থাকা এক্সপেকটোরেন্ট এবং অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল উপাদান কাশি উপশমে কাজ করে। এক চা চামুচ ঘিয়ে রসুনের পাঁচটি কোয়া কুচি করে হালকা ভেজে কুসুম গরম অবস্থায় খেয়ে নিন। ইউনিভার্সিটি অফ মারিল্যান্ড সেন্টার সিটিজের (University of Maryland Medical Center cites) এর মতে কাশি উপশমে রসুন অবশ্যই কার্যকর।

সবাই এখন যা পড়ছে :-

খুব বেশি পর্ন দেখেন? জানেন কী ক্ষতি করছেন নিজের!

ব্যস্ত জীবনের মধ্যে পর্ন দেখার জন্য অনেকেই সময় বের করে নেন। অনেকেই দিনান্তে পর্ন দেখেন সাময়িক আনন্দলাভের আশায়। কিন্তু জানেন কি, বেশি মাত্রায় পর্ন দর্শন কতটা সর্বনাশ করছে আপনার? সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, যাঁরা নিয়মিত পর্ন দেখেন, তাঁরা বিভিন্ন ধরনের সমস্যায় ভুগছেন। পৃথিবীর একাধিক দেশের পুরুষ, নারীর উপর এই সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে ভয়ঙ্কর সব সমস্যার জন্ম দিচ্ছে এই অভ্যাস। মানসিক বিকৃতির জন্ম দেয়। অতিরিক্ত পর্ন মস্তিস্কের উপর চাপ ফেলে। স্বাভাবিক বিচক্ষণতা লুপ্ত হতে থাকে। বাস্তব থেকে দূরে সরিয়ে দেয় মানুষকে। বাস্তব এবং অবাস্তবের মধ্যে এক অদ্ভুত গুলিয়ে দেওয়া পরিস্থিতি তৈরি করে।

ক্রমশ নিজের ব্যক্তিগত আবেগ, ইমোশনের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারাতে শুরু করে। হঠাৎ রেগে যাওয়াও এক অন্যতম লক্ষণ। সর্বোপরি একটা সুস্থ জীবন থেকে আপনাকে ক্রমশ দূরে সরিয়ে নিয়ে যাবে আপনার পর্ন-দর্শন। শুধু জীবনসঙ্গী নয়, সন্তানদের থেকেও দূরে সরিয়ে নিয়ে যাবে আপনাকে। কারণ অতিরিক্ত পর্ন দেখলে পৃথিবীর স্বাভাবিক, নিষ্পাপ আনন্দ আপনি উপভোগ করতেই ভুলে যাবেন ধীরে ধীরে। ব্যক্তিগত জীবন অসুখী করে তোলে। সঙ্গীকে সুখী করা বা সঙ্গীর থেকে আনন্দ পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় আপনার এই অভ্যাস।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>